ঢাকা, আজ মঙ্গলবার, ২৮ জুন ২০২২

সৌদি আরবের আসীর প্রদেশে জমঈয়ত সভাপতির সফল সফর ও কমিটি গঠন

প্রকাশ: ২০২২-০৫-১৮ ০৩:৫৬:০৯ || আপডেট: ২০২২-০৫-১৮ ০৩:৫৬:০৯

প্রেস বিজ্ঞপ্তিঃ

গত ১২ই বাংলাদেশ জমঈয়তে আহলে হাদীসের সম্মানিত সভাপতি ডঃ আব্দুল্লাহ ফারুক সালাফী হাফিজাহুল্লাহ এক সংক্ষিপ্ত সফরে দক্ষিন সৌদি আরবের আসীর অঞ্চলে আসেন। আবহা বিমান বন্দরে তাঁকে স্বাগত জানাতে উপস্থিত হন অধ্যাপক মুহাম্মদ আসাদুল ইসলাম, শাইখ হাফেজ আনোয়ারুল ইসলাম মাদানী, শাইখ আব্দুল হামীদ বিন সিদ্দীক হুসাইন, শাইখ জসিম উদ্দীন মাদানী, অধ্যাপক মীর রুমী মুস্তাফিজুর রহমান ও হাম্মাদ হাফিজ।

সন্ধ্যায় খামিস মুশাইত দাওয়াহ সেন্টারে ডঃ আব্দুল্লাহ ফারুক হাফিজাহুল্লাহকে জাঁকজমকপূর্ণ ও উষ্ণ অভ্যর্থনা জানান সেন্টারের উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তা ডঃ আহমাদ সালমান আল ফিইফী ও শাইখ আব্দুল কারীম হাসান আলে মাশহুর সহ আরো অনেকে। সেন্টারের কনফারেন্স হলে আয়েজিত অনুষ্ঠানে জমঈয়ত সভাপতি বাংলাদেশে জমঈয়তের কর্ম তৎপরতা, সফলতা, বাংলাদেশে সহীহ ও বিশুদ্ধ মানহাজে আগতদের পরিসংখ্যানসহ বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন। সেন্টারের মুদীরবৃন্দ ডঃ আব্দুল্লাহ ফারুক হাফিজাহুল্লাহ’র আরবী ভাষায় স্বাবলীল উপস্থপনায় মুগ্ধ হন এবং তাঁর সম্মানে আয়োজিত মনোমুগ্ধকর চা চক্র শেষে তাঁকে উপহার প্রদান করেন। সেন্টার কর্তৃপক্ষ ভবিষ্যতে আরো সময় হাতে নিয়ে তাঁকে আবার সফর করার জন্য অগ্রীম দাওয়াত দেন এবং তারাও বাংলাদেশে যাবার আগ্রহ ব্যক্ত করেন।

পরবর্তীতে এশার সলাতের পর প্রধান অতিথি খামিসের পার্শ্ববর্তী আহাদ রুফাইদা দাওয়াহ সেন্টার মিলনায়তনে আয়োজিত এক কর্মী সমাবেশে যোগদান করেন। শাইখ হাফিজ আনেয়ারুল ইসলাম মাদানীর সভাপতিত্বে ও শাইখ জসিম উদ্দীনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিভিন্ন পেশার মানুষের সমাগম হয়। শুরুতে স্বাগত বক্তব্য উপস্থাপন করেন শাইখ হাফিজ আনেয়ারুল ইসলাম মাদানী। তিনি তাঁর বক্তব্যে আহলুল হাদীসের সঠিক ও বিশুদ্ধ মানহাজ তুলে ধরেন এবং সে অনুযায়ী কাজ করতে উদ্বুদ্ধ করেন। অতঃপর জমঈয়তের রিপোর্ট পেশ করে বক্তব্য প্রদান করেন আসীর এলাকা জমঈয়তের বিদায়ী সেক্রেটারী ও পশ্চিম সৌদি আরব প্রবাসী জেলা জমঈয়তের নবনির্বাচিত সেক্রেটারী শাইখ আব্দুল হামীদ বিন সিদ্দীক হুসাইন। সমাবেশে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন অধ্যাপক মুহাম্মদ আসাদুল ইসলাম। এতে আরো বক্তব্য রাখেন শাইখ জহির রায়হান মাদানী, অধ্যাপক মীর রুমী মুস্তাফিজুর রহমান, ডাঃ এ, কে, এম, শহীদুল্লাহসহ কিং খালিদ বিশ্ববিদ্যালয়ের এবং দাওয়া সেন্টারের শিক্ষার্থীবৃন্দ।

প্রধান অতিথির ভাষণে ডঃ আব্দুল্লাহ ফারুক সালাফী অত্যন্ত চমৎকারভাবে তাঁর জ্ঞানগর্ভ বক্তব্য তুলে ধরে উপস্থিত দর্শক, শ্রোতাদের অভিভুত করেন। তিনি আল্লাহর সৃষ্ট নয়নাভিরাম আসীর অঞ্চলের প্রাকৃতিক লীলাভূমির ভূয়সী প্রশংসা করেন এবং এখানে বসবাসরত বাংলাদেশীদের ভাগ্যবান বলে উল্লেখ করেন। ডঃ আব্দুল্লাহ ফারুক সালাফী জমঈয়তে আহলে হাদিসের পরিচয়, তৎপরতা ও অবদানের কথা তুলে ধরে সবাইকে একযোগে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করার আহ্বান জানান।

বাংলাদেশ জমঈয়ত সভাপতির উপস্থিতিতে আসীর জমঈয়তের কমিটি পূনর্গঠন করা হয়। কমিটিতে নির্বাচিত হন আসীর অঞ্চলে জমঈয়তে আহলে হাদীসের কমিটির উপদেষ্টা বিশা ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক মুহাম্মদ আসাদুল ইসলাম, সরকারী মা শিশু হসপিটাল (শিশু স্পেশালিস্ট) অধ্যাপক ডাঃ এ.কে.এম. শহিদুল্লাহ, জাহাঙ্গীর আলম

সভাপতি শাইখ হাফেজ আনোয়ারুল ইসলাম মাদানী, সহ-সভাপতি- শাইখ আব্দুল হামীদ বিন সিদ্দীক হুসাইন, অধ্যাপক মীর রুমী মুস্তাফিজুর রহমান, শাইখ জহির রায়হান মাদানী, সাধারণ সম্পাদক শাইখ জসিম উদ্দীন মাদানী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাফেজ মুস্তাফিজুর রহমান,সাংগঠনিক সম্পাদক- শাফী আব্দুল ওহাব লিটন,কোষাধ্যক্ষ আব্দুর রহমান আবু মুহাম্মদ, সহ কোষাধ্যক্ষ লুৎফর রহমান তাজুল ইসলাম, দাওয়াত ও ইরশাদ সম্পাদক আব্দুল হান্নান আব্দুল ওয়াদুদ, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক জাহিদ হুসাইন মানু মিয়া, শুব্বান বিষয়ক সম্পাদক হাম্মাদ হাফেজ আনোয়ারুল ইসলাম, মহিলা ও শিশু বিষয়ক সম্পাদক হাফেজ আনসার, সমাজ সেবা ও জনকল্যাণ সম্পাদক আবু ওয়ালিদ আলাউদ্দীন, পাঠাগার সম্পাদক আমীর আবু আইয়ান, দপ্তর সম্পাদক- আলাউদ্দীন সিদ্দীক আহমেদ। সদস্য জাকির হুসাইন, মাহবুব আলম আবু সাঈদ, আব্দুল কুদ্দুস আবুল কালাম, আলতাফ হোসেন, শরীফ হোসেন, ফয়েজ আহমেদ, মাহফুজ মিয়া, হাফিজুর রহমান, শামীম মিয়া আরো অনেকে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে নির্বাচিত হন।

পরিশেষে সভাপতি নৈশভোজের আমন্ত্রণ জানিয়ে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষনা করেন।

সভা শেষে শাইখ হাফেজ আনোয়ারুল ইসলাম মাদানীর বাসভবনে এক বিশাল এবং মুখরোচক নৈশভোজের আয়োজন করা হয়।

১৩ মে শুক্রবার সকালে শাইখ আব্দুল হামীদ বিন সিদ্দীক হুসাইনের বাসভবনে রকমারি আয়োজনে প্রাতভোজ ও চা পান শেষে ২২ জনের একটি টিম ডঃ আব্দুল্লাহ ফারুক সালাফীকে আবহা এবং খামিসের বিভিন্ন ট্যুরিষ্ট স্পট ঘুরে ঘুরে দেখান। আল সুদা পর্বতশৃংগের এক মসজিদে জুমার সালাত আদায় করে তাঁকে আবহা লেইক ভিউয়ে নিয়ে আসা হয়। এরপর আবহা শহরের অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ ও চিত্তাকর্ষক স্থানসমূহ পরিদর্শন শেষে সবাই আব্দুর রহমান আবু মুহাম্মদের আমন্ত্রণে তার পাহাড়ী ভিলায় দুপুরের খাবারের জন্য প্রধান অতিথির
সাথে মিলিত হন।

মধ্যাহ্নভোজের পর শাইখ আব্দুল হামীদ সিদ্দীক ও অধ্যাপক মুহাম্মদ আসাদুল ইসলাম ডঃ আব্দুল্লাহ ফারুক হাফিজাহুল্লাহকে রিয়াদের উদ্দেশ্যে আবহা এয়ারপোর্টে বিদায় জানাতে তাঁর সাথে যান।

তিনি আসীর এলাকার সফরকে ইতিবাচক ও স্মরনীয় হিসেবে মন্তব্য করেন এবং সবার উষ্ণ আতিথেয়তা ও আন্তরিক সাহচর্য্যের ভূয়সী প্রশংসা করেন। আলহামদুলিল্লাহ।