ঢাকা, আজ শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর ২০২০

করোনা প্রতিরোধে জীবন বাজি রেখে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন -লাকসামের ভাইস চেয়ারম্যান মহব্বত আলী

প্রকাশ: ২০২০-০৫-০২ ০৮:৩৩:৪৫ || আপডেট: ২০২০-০৫-০২ ০৮:৩৩:৪৫

রবিউল হোসাইন সবুজ(লাকসাম):

বৈশ্বিক দুর্যোগ প্রাণঘাতী নভেল করোনা ভাইরাস কোভিড-১৯ দেশের অধিকাংশ একালায় আক্রান্ত ব্যক্তি সনাক্ত হচ্ছে প্রতিদিন। ইতিমধ্যে লাকসাম উপজেলা ১০ জন সনাক্ত হয়েছে।

সনাক্ত ব্যক্তিদের নিরাপদে রেখে তদারকি করছে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান । তাদের প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সেবা প্রদানের পাশাপাশি খাদ্য সহায়তা নিশ্চিত করতে সার্বক্ষণিক খোঁজ খবর রাখছেন উপজেলা প্রশাসন।
লাকসাম উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান মহব্বত আলী উপজেলায় বিভিন্ন পর্যায় গ্রামাঞ্চল, হাটবাজারে মানুষকে সচেতন করতে দিনরাত এক করে করে দিচ্ছেন। শুধু লাকসাম উপজেলার মানুষকে একটু ভালো রাখার জন্য । তাই তিনি বাজারে সচেতনতা তৈরি, মাইকিং, খাদ্য সামগ্রী বিতরণ, কোয়ারেন্টাইন বাস্তবায়নে তদারকি, মহাসড়কসহ গ্রামের বাজারগুলোতে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করা, খাদ্যসামগ্রী ও সরকারী অনুদান বিতরনে তাদের মাধ্যমে ভেরিফাই করাসহ সবধরনের কাজে সম্পৃক্ত করছেন।

মহামারি করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় সরকারের পাশাপাশি বিভিন্ন ব্যাক্তি প্রতিষ্ঠানসহ নানা পেশাজীবীর তরুণ প্রজন্ম এগিয়ে আসছে। সামনের সারি থেকে যারা এ যুদ্ধ মোকাবেলায় যারা জীবন বাজি রেখে কাজ করছেন তাদের মধ্যে লাকসাম উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মহব্বত আলী অন্যতম।

তিনি নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে যেনো করোনার প্রকোপ থেকে লাকসামবাসীকে মুক্ত রাখা যায়। রোগীদের খাবার পৌঁছানো, নিম্ন আয়ের মানুষের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ, সেনিটাইজার বিতরণ, শহর পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করণ থেকে শুরু নমুনা সংগ্রহে সহযোগিতা, দাফন কাফনে সহযোগিতা, লকডাউন বাস্তবায়ন, চাল বিতরণে সহযোগিতা থেকে শুরু করে প্রশাসনের সকল কাজেই সহযোগিতা করছেন এ ভাইস চেয়ারম্যান ।


এরই ধারাবাহিকতায় বৃহস্পতিবার সকাল বেলা লাকসাম পৌর-শহরে ৮নং ওয়ার্ডে নোয়াখালী আগেতো থেকে দুই সহোদর ভাইয়ের আক্রান্ত হয়ে একই পরিবারের ৮ জন আক্রান্ত হলে তিনি বার-বার ছুটে যান ওই স্থানে।এবং উক্ত ওয়ার্ডের কমিশনার কে কঠিন নির্দেশনা দেন। যাতে করে এখানে কোন রকম সমস্যা যেনো না হয়।আর সকল লোকের সুবিধা-অসুবিধা দেখার জন্য বলেন।

এদিকে কুমিল্লার লাকসামকে করোনামুক্ত রাখতে উপজেলা প্রশাসন, স্বাস্থ্যবিভাগ, পৌরসভা ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সচেতনতামুলক তৎপরতা ছিল লক্ষ্যনীয়।এবং উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ আবদুল আলী, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউ.এন.ও) এ.কে.এম সাইফুল ইসলাম, মহিলা ভাইস-চেয়ারম্যান পড়শী সাহাকে নিয়ে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন মাঠ পর্যায়ে । আর প্রশাসনিক কার্যক্রমে সহযোগিতা আর করোনার প্রকোপ মোকাবিলায় কার্যকরী ভূমিকা পালন করেছেন বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।

উক্ত এলাকার বাসিন্দা বলেন, আমরা সাধুবাদ জানাই লাকসাম উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান কে। যে কিনা দিন-রাত এক করে মাথার ঘাম পায়ে ফেলে আমাদের লাকসামবাসীর পাশে বার-বার দাঁড়াচ্ছেন । তিনি আমাদের লাকসামবাসীর জন্য গর্ব। আর বার-বার আমরা এমন ভাইস চেয়ারম্যান কে চাই। আর যিনি কিনা দিনরাত গরীব অসহায় মানুষের কথা ভেবে চিন্তিত থাকেন।