ঢাকা, আজ সোমবার, ১৯ অক্টোবর ২০২০

প্রশংসায় ভাসছেন কুমিল্লা দেবিদ্বারের ইউএনও

প্রকাশ: ২০২০-০৪-২৭ ০৩:২০:৫৫ || আপডেট: ২০২০-০৪-২৭ ০৩:২০:৫৫

আবুল বাশার, দেবিদ্বারঃ

পবিত্র মাহে রমজানের দ্বিতীয় দিনের চিত্র।ইফতারের আগ মূর্হুতে নেমে আসে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি। এর মধ্যে রাস্তায় জীবিকার তাগিদে কেউ রিক্সা, কেউ হকারী আর কেউবা ইফতার সামগ্রী বিক্রি করতে দেখা গেছে।আর মাত্র ইফতারের ১৫ মিনিটের মতো বাকি।যার কারণে ইফতার করতে প্রত্যেকে নিজ নিজ গন্তব্যে ছুটছেন।কিন্তু এই সময়ে দেখা গেছে কুমিল্লা জেলার দেবিদ্বার উপজেলা সদরের নিউমার্কেট এলাকায় গাড়িতে করে ইফতারের প্যাকেট নিয়ে হাজির হন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. রাকিব হাসান। এরপর গাড়ি থেকে নেমে ছাতা মাথায় দিয়ে ইউএনও নিজেই রিক্সা চালক, সিএনজি চালক, রাস্তায় চলাচল মানুষদের মাঝে ইফতারের প্যাকেট ও কোমল পানীয় বিতরণ করেন। প্রতিটি প্যাকেটে ইফতার যা ছিলো, তা হলো খেজুর, ছোলা বুট, বেগুনি , পিঁয়াজু, , মুড়ি, জিলাপি ও আপেল ।

দেবিদ্বার উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে এ ধরনের ব্যতিক্রম আয়োজনকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান অপ্রত্যাশিতভাবে ইফতার পাওয়া লোকজন।আর এ চিত্র সংবাদ মাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়াতে সমাজের সকল শ্রেণির পেশাজীবি লোকজনেরা ইউএনওকে অভিনন্দন ও ধন্যবাদ জানাই। তারা জানান, করোনার কারণে এক প্রকার কর্মহীন, সংসারে খরচের জন্য রাস্তায় বেরুলেও আগের মতো ইনকাম হয় না।আর এখন ইফতারি করতে গেলে কমপক্ষে ৫০ টাকা খরচ হতো।কিন্তু ফ্রি ইফতার পাওয়াতে ওই টাকাটা বেঁচে গেল।তাছাড়া উপজেলা সদরের সব হোটেল-রেস্তোরাঁও বন্ধ।

এ নিয়ে জানতে চাইরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাকিব হাসান জানান, রহমত, বরকত ও মাগফিরাতের রমজান মাস ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের জন্য অত্যন্ত গূরুত্বপূর্ণ। এ উদ্ভুত পরিস্থিতেও প্রত্যেকে প্রত্যেকের অবস্থান থেকে নানা কষ্টের মধ্য দিয়ে রোজা রাখছে। যার জন্য আমরা নিজেদের খাবারের একটা অংশ অসহায় মানুষের জন্য বিলিয়ে দেয়ার উদ্যোগ গ্রহণ করি।
তিনি বলেন, করোনাভাইরাসে সৃষ্ট লকডাউন পরিস্থিতিতে কর্মহীন হয়ে পড়েছে নানা পেশাজীবি লোকজন ।কিন্তু এর মধ্যে একেবারে দিনে এনে দিনে খাওয়া লোকগুলো পরিবারের সাংসারিক খরচের চাপে রাস্তায় বের হচ্ছে।অনেকে বলে আগের মতো তাদের আয় রোজগার নেয়। এ অবস্থায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে উপার্জন করা টাকা দিয়ে সংসার চালাতে প্রতিনিয়ত হিমশিম খেতে হচ্ছে।যার কারণে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে রমজান মাস জুড়ে কর্মহীন ও ছিন্নমূল মানুষের জন্য ইফতার সামগ্রী বিতরণ অব্যাহত রাখা হবে। এছাড়া এ ধরনের জাতীয় পর্যায়ের দুর্যোগে যার যার সাধ্য অনুসারে অসহায় লোকদের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানান তিনি।