ঢাকা, আজ শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১

ব্রাহ্মণপাড়ায় মাদক ব্যাবসায়ীর হামলায় ৪ পুলিশ সদস্য আহত গ্রেপ্তার-৩

প্রকাশ: ২০২১-০৮-০৫ ০৮:৩৬:১০ || আপডেট: ২০২১-০৮-০৫ ০৮:৩৬:১০

মোঃ সোহেল ইসলাম, ব্রাহ্মণপাড়া প্রতিনিধি:

কুমিল্লা জেলার ব্রাহ্মণপাড়া থানা পুলিশ মাদকের একাধিক মামলা ও ওয়ারেন্টভুক্ত আসামীদের গ্রেপ্তার করতে গেলে পুলিশের উপর মাদক ব্যাবসায়ী ও তাদের সহযোগিরা হামলা চালিয়ে ৪ পুলিশ সদস্যকে আহত করেছে। পরে অতিরিক্ত পুলিশ আহতদের উদ্ধার করে হামলাকারীদের মধ্যে ৩ মাদক ব্যাবসায়ীকে গ্রেপ্তার করে কুমিল্লা জেল হাজতে প্রেরন করেছে। এব্যাপার এসআই সাইফুল ইসলাম বাদী হয়ে ১০ জনকে নামীয় ও অজ্ঞাত ১০/১২ জনকে আসামি করে থানায় মামলা দায়ের করেছে। মামলার এজাহার সূত্র জানা যায়,
থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) অপ্পেলা রাজু নাহা’র নির্দেশে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় থানার এসআই মোঃ সাইফুল ইসলাম, এসআই কামাল হোসেনসহ পুলিশের একটি দল উপজেলার চান্দলা রামচন্দ্রপুর এলাকায় মাদকের একাধিক মামলার আসামীদের গ্রেপ্তারে অভিযান চালায়।

পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে আসামীরাসহ তাদের ১৫/২০ জন সহযোগী দেশিয় অস্ত্র দা, রামদা, লাঠি-সোটা নিয়ে পুলিশের উপর হামলা চালায়। হামলায় ৪ পুলিশ সদস্য আহত হয় এবং পুলিশের ব্যবহৃত ২ টি মোটর সাইকেল ভাংচুর করে। আহত পুলিশ সদস্যরা হল- এসআই সাইফুল ইসলাম, এসআই কামাল হোসেন, এএসআই কৃষ্ণ সরকার ও কনষ্টেবল নুরুজ্জামান। হামলাকারীরা আহতদের শরীরের বিভিন্ন স্হানে কুপিয়ে ও পিটিয়ে আহত করে। তাৎক্ষণিক থানা থেকে থানার ওসিসহ অতিরিক্ত পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে গিয়ে আহত পুলিশ সদস্যদের উদ্ধার করে ব্রাহ্মণপাড়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে এবং ঘটনাস্থল থেকে ৩ আসামীকে গ্রেপ্তার করে। গ্রেপ্তারকৃত আসামিরা হল- ব্রাহ্মণপাড়া থানার চান্দলা রামচন্দ্রপুর এলাকার মৃত সৈয়দ আহাম্মদের ছেলে আবুল কালাম আজাদ প্রকাশ খোকন(৪৯), উপজেলার চান্দলা হুরারপার এলাকার আবু জাহেরের ছেলে ইকবাল হোসেন(২৭), চান্দলা ধলগ্রাম এলাকার জাহাঙ্গীর আলীর ছেলে এনামুল হক(২৫)।

মামলার পলাতক আসামীরা হল-চান্দলা রামচন্দ্রপুর এলাকার জামাল খানের ছেলে লোকমান হোসেন খান(৩৭), তার ভাই রাশেদ খান (২৬), মৃত আব্দুর রহমানের ছেলে ইউসুফ(৩৫), চান্দলা গ্রামের ইসমাইলের ছেলে ইছহাক(২৫), চান্দলা গজারিয়া গ্রামের বাচ্চু মিয়ার ছেলে হাসান(২৬), চান্দলা হুরারপারের শাহজাহানের ছেলে বাবু(২৫), জামাল খানের মেয়ে সালমা আক্তার শেলীসহ অজ্ঞাত ১০/১২ জন।
থানার এসআই মোঃ সাইফুল ইসলাম বাদি হয়ে পুলিশের উপর হামলা ও কর্তব্য কাজে বাধা দেয়ায় এ মামলা দায়ের করেন। গ্রেপ্তারকৃত আসামী আবুল কালাম আজাদ প্রকাশ খোকনের বিরুদ্ধে নোয়াখালী বেগমগঞ্জ থানায় ২০১২ সালের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের মামলা, ইকবাল হোসেনের বিরুদ্ধে ২০১৩ সালে ব্রাহ্মণপাড়া থানায় এবং ২০২০ সালে বুড়িচং থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের দুইটি মামলা এবং
পলাতক আসামী লোকমান হোসেন খানের বিরুদ্ধে ৫টি মাদকের মামলা, ২০১৩ সালের খিলগাঁও থানায় নারী ও শিশু নির্যাতনসহ মোট ৬ টি মামলা রয়েছে বলে পুলিশ জানান।

থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি অপ্পেলা রাজু নাহা সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, পুলিশের ওপর হামলার বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে অবগত করি। বুধবার সকালে কুমিল্লা জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (আপরাধ) তানবির আহাম্মদ ও (দেবিদ্দার-ব্রাহ্মণপাড়া) সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ আমিরুল্লাহ মহোদয়কে নিয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করি। পরবর্তীতে হাসপাতালে এসে আহত পুলিশ সদস্যদের খোঁজখবর নেন উর্ধতন কতৃপক্ষরা। বুধবার সকালে আটককৃত আসামীদেরকে কোর্টের মাধ্যমে কুমিল্লা জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।