ঢাকা, আজ মঙ্গলবার, ২৮ জুন ২০২২

মাদক প্রতিরোধে ‘একাট্টার ঘোষণা এলাকাবাসীর’

প্রকাশ: ২০২২-০৫-১৯ ১২:০৭:২১ || আপডেট: ২০২২-০৫-১৯ ১২:০৭:২১

আবুল বাশার :দেবিদ্বার (কুমিল্লা) প্রতিনিধি।

 

মাদকের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে একাট্টা  হওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন এলাকাবাসী। ঘোষণার পর বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে দেবিদ্বার পৌর এলাকার বড় আলমপুরে মানববন্ধন করেন এলাকাবাসী। ওই মানববন্ধনে চিহ্নিত দুই মাদককারবারীকে গ্রেফতারের দাবি জানান তাঁরা।

তরুণ প্রজন্ম যুব সংঘ’র আয়োজনে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, খোরশেদ আলম মাস্টার, ওয়ার্ড আ.লীগের সভাপতি সাবের আহম্মেদ, ওয়ার্ড কমিশনার মো. শহিদুল ইসলাম, পৌর যুবলীগের সহ সভাপতি মো. আবুল হোসেন, স্বেচ্ছাসেবকলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. মিজানুর রহমান, সেলিম মিয়া, আরিফ হোসেন, ছাত্রলীগ নেতা মঞ্জুরুল হাছান, সেলিম সরকার, রাজিব সরকার প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, এলাকায় মাদকে ছেঁয়ে গেছে। কয়েকজন চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী পুরো এলাকায় মাদকের বিস্তার ছড়াচ্ছে। তাদের অবিলম্বে  গ্রেফতার করতে হবে। বক্তারা বড়আলমপুরের মোশারফ হোসেন ও বিনাইপাড় গ্রামের হাবিবের নাম  উল্লেখ করে বলেন,  এই দুইজন সবসময় ধরা-ছোঁয়ার বাহিরে থেকে মাদক সাপ্লাইয়ের সিন্ডিকেট গড়ে তুলেছে,‘‘ঘরের দরজায় টোকা দিলেই ভিতর থেকে আওয়াজ আসে কয় পিস’’ তাঁরা প্রশাসন ম্যানেজ করে এ ব্যবসা চালাচ্ছে এমন কথাও এলাকায় বলে বেড়াচ্ছে।  আমরা এর থেকে নিস্তার চাই, এ এলাকায় কেউ আত্মীয়তা করতে চাইছে না, মাদক সেবনের কারণে এলাকার বহু সংসার ভেঙেছে, পরিবারে মারামারি হানাহানি হচ্ছে, চুরি, ডাকাতি, ছিনতাই বাড়ছে। দিন দিন সমাজ ব্যবস্থা  ভেঙে পড়ছে। আমাদের পিঠ এখন দেয়ালে ঠেকে গেছে, আমরা এলাকাবাসী একাট্টা হয়ে মাদকের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলব। যদি থানা পুলিশ আমাদের সহযোগিতা না করে আমরা আরও কঠোর আন্দোলনের ঘোষণা দেব, থানা ঘেরাও করব।

 

তরুণ প্রজন্ম যুব সংঘ’র সভাপতি মো. আবুল হোসেন বলেন, এলাকার শিশু-কিশোররা এ মাদকে জড়িয়ে পড়ছে বেশি। গোমতীর বেঁড়িবাঁধসহ বিভিন্নস্থানে প্রকাশ্যে বসে জুয়া ও মাদকের রমরমা আসর। উঠতি বয়সের যুবক ও তরুণরা এ আসরে প্রতিদিন বসেন। এমনও হয়েছে, মাদকের টাকার জোগার করার জন্য এলাকায় চুরি-ছিনতাইসহ বিভিন্ন অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে তাঁরা। তাদেরকে মাদক থেকে ফিরিয়ে আনার অনেক চেষ্টা করা হয়েছে, কিন্তু আমরাসফল হয়নি। আমরা  এলাকার যুবক ও তরুণদের নিয়ে মাদক নির্মূল কমিটি ঘোষণা করেছি। কমিটির সদস্যরা প্রতিদিন ও রাতে এলাকায় মাদকের সম্ভাব্য স্থানে পাহাড়ায় বসেন। এ পাহাড়ায় আমরা গত মঙ্গলবার সোহাগ নােেম এক মাদক ব্যবসায়ীকে দুই কেজি গাজাসহ হাতে নাতে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছি। মানববন্ধনে এলাকায় আরও যারা চিহ্নিত মাদককারবারী রয়েছে তাদের গ্রেফতারের দাবি জানানো হয়।