ঢাকা, আজ শুক্রবার, ৫ মার্চ ২০২১

দেবিদ্বারে মহান শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত

প্রকাশ: ২০২১-০২-২১ ১৬:৪৭:৪৭ || আপডেট: ২০২১-০২-২১ ১৬:৫৯:৪৪

আবুল বাশার : (দেবিদ্বার)কুমিল্লা

আজ আমাদের ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর মাতৃভাষা সংরক্ষন, সংস্কৃতি, ইতিহাস ঐতিহ্য রক্ষায় স্ব স্ব বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা এবং পাঠ্যবই’র উপর গুরুত্ব দিতে হবে। তবেই আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস সফল হবে। বুধবার দিনব্যাপী উপজেলা প্রশাসন সহ বিভিন্ন সংগঠন কর্তৃক আয়োজিত আলোচনা সভায় আলোচকরা ৫২’র ২১শে ফেব্রুয়ারী মহান শহিদ দিবস থেকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের তাৎপর্য, ভাষা সৈনিকদের তালিকা প্রনয়ন, জাতিসংঘ, আদালত সহ সর্বস্তরে বাংলা ভাষার প্রচলন এবং সকল ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর মাতৃভাষা সংরক্ষনের উপর জোর দিতে যেয়ে ওই বক্তব্য তুলে ধরেন।
আলোচকরা বলেন, ৬৬ বছর পূর্বে বিশ্বের ইতিহাসে মায়ের ভাষা রক্ষার দাবীতে একমাত্র বাঙ্গালীরাই বুকের রক্ত দিয়েছে। যার ফলশ্রুতিতে স্ব স্ব মাতৃভাষা রক্ষার দাবীতে দিনটি অর্থাৎ ২১ ফেব্রুয়ারী আজ বিশ্বব্যাপী মাতৃভাষা দিবস হিসেবে পালিত হচ্ছে। পৃথিবীতে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে প্রায় ৬থেকে ৭হাজার জীবন্ত মাতৃভাষা। পৃথিবীতে এখন দু’রকম ভাষা রয়েছে একটি সংখ্যাগরিষ্ঠ অপরটি সংখ্যালগিষ্ঠ। সংখ্যাগরিষ্ঠের চাপে সংখ্যালগিষ্ঠদের মৃত্যু হচ্ছে। সংখ্যালগিষ্ঠরা সংখ্যাগরিষ্ঠের ভাষা গ্রহন করতে হচ্ছে। মূলত, সভ্যতার আলো যতোই প্রসারিত হচ্ছে নানা জাতি গোষ্ঠী বা উপজাতীয় জনগোষ্ঠীর লোকেরা তাদের জীবিকা বা কর্মসংস্থানের প্রয়োজনে ততোই শহরে ভিড় করছে। এদের মাতৃভাষাই দিন দিন লোপ পাচ্ছে। বিশেষ করে যাযাবর জনগোষ্ঠী এবং পাহাড় বা বনাঞ্চল থেকে শহরে চলে আসা ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর ভাষা এর বেশি শিকার। যাযাবররা তাদের জীবনপদ্ধতি ত্যাগ করে শহরে আশ্রয় নিয়ে শহরের মূলধারা থেকে প্রত্যাখ্যাত হওয়ার আশঙ্কায় তাদের নিজস্ব সামাজিক আচার ও সংস্কৃতি এবং ভাষা থেকে দূরে সরে যাচ্ছে। একটি জাতি আলাদা হচ্ছে তার সংস্কৃতির জন্য। এ সংস্কৃতির অপরিমাপ্য উপাদান বা সম্পদ হচ্ছে ভাষা।
এখন নতুন করে ভাষার জন্ম থাক দূরের কথা নানা কারনে এসকল ভাষার অস্তিত্ব নিয়ে শঙ্কা দেখা দিয়েছে। পৃথিবী থেকে দিন দিন বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর অনেক মাতৃভাষা। ইতি মধ্যে প্রায় দেড় হাজার মাতৃভাষা বিলুপ্ত হয়ে গেছে। গত ৫০ বছরে শুধুমাত্র ভারতেই প্রায় ২শতাধিক মাতৃভাষা বিলুপ্ত হয়েছে। এক হিসেবে দেখা যায় প্রতি ২দিনে অর্থাৎ ৪৮ ঘন্টায় একটি করে মাতৃভাষার মৃত্যু হচ্ছে। স্ব স্ব ভাষা ভাষীরা তাদের নিজ ভাষা আগে শিখে। মানুষ যখন মাতৃগর্ভে থাকে, তখনই মাতৃভাষা সম্পর্কে তার ভেতরে সংবেদন সৃষ্টি হয়। তাই আজ আমাদের ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর মাতৃভাষা সংরক্ষন, সংস্কৃতি, ইতিহাস ঐতিহ্য রক্ষায় স্ব স্ব বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা এবং পাঠ্যবই’র উপর গুরুত্ব দিতে হবে। তবেই আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস সফল হবে।
দিনটি যথাযোগ্য মর্যাদায় উদযাপন করার প্রাক্কালে ভাষা শহীদদের স্মরনে উপজেলা কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারে পুষ্পার্ঘ অর্পণ করে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন দেবিদ্বার ‘উপজেলা প্রশাসন’, ‘মুক্তিযোদ্ধা সংসদ’, ‘থানা প্রশাসন’, ‘পৌর প্রশাসন’, ‘আওয়ামী লীগ’ ও এর অঙ্গসংগঠন, এস, এ,সরকারী কলেজ’, ‘দেবিদ্বার প্রেসক্লাব’, সামাজিক সংগঠন ‘আলফা স্কোয়াড’ ‘আলহাজ্ব জোবেদা খাতুন মহিলা কলেজ’, ‘দেবিদ্বার রেয়াজ উদ্দিন মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন।
উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে মঙ্গলবার দিবাগত রাত ১২টা ১মিনিটে কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারে পুষ্পার্ঘ অর্পণের মধ্য দিয়ে দিবসটির সূচনা করে। এছাড়াও বিভিন্ন সংগঠন আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে দিবসটি পালন করে।