ঢাকা, আজ শুক্রবার, ৪ ডিসেম্বর ২০২০

বরুড়া পৌর নির্বাচনের হাফ ডজন প্রার্থী : কার ভাগ্যে নৌকার টিকেট ?

প্রকাশ: ২০২০-১১-১৯ ১৬:১০:২৩ || আপডেট: ২০২০-১১-১৯ ১৬:১২:৫৩

শান্তনু হাসান খান(বিশেষ প্রতিনিধি)ঃ

কুমিল্লা জেলার হোমনা, চান্দিনা, দাউদকান্দি, লাকসাম, বরুড়া ও চৌদ্দগ্রাম পৌরসভার নির্বাচন ডিসেম্বরেই সম্ভাবনা বেশী। এ বিষয়ে স্থানীয় মাঠ প্রশাসনকে নির্বাচনী প্রস্তুতি নিতে বলা হয়েছে। তবে এবার ব্যালটে নয়-ইভিএম পদ্ধতিতে। ১৯৪৮ সালের ২৪ শে এপ্রিল চান্দিনা থেকে পৃথক হওয়ার পরে বরুড়া আলাদা একটি উপজেলায় উত্তির্ন হওয়ার পর ১৯৯৫ সালে পৌরসভা গেজেট হয়।

আর তখন প্রথম চেয়ারম্যান ছিলেন মোবারক হোসেন মীর। এরপর ধারাবাহিক ভাবে ২ মেয়াদে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন মোঃ বাহাদুরুজ্জামান বাহাদুর। এরপর বর্তমান মেয়র জসিম উদ্দিন পাটোয়ারী ২ মেয়াদে মেয়র। আগের সবাই আওয়ামী লীগের সমর্থক হলেও বর্তমান মেয়র বিএনপির। ১টি দ্বিতীয় শ্রেনীর উপজেলা ভিত্তিক পৌরসভার যতটা উন্নয়ন হওয়ার কথা তা অনেকটাই ম্লান করে দিয়েছে। তারপরেও এখানে নির্বাচন হচ্ছে চলতি ডিসেম্বরের ৩য় ধাপে। সম্ভাব্য প্রার্থীরা তফশীল ঘোষনার আগেই নিরবে মাঠ গুচাচ্ছেন।

এর মধ্যে সম্ভাব্য প্রার্থীরা রয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক নাসির উদ্দিন লিংকন, উপজেলা যুব লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক বক্তার হোসেন বকতিয়ার। ঢাকাস্থ বরুড়া জনকল্যাণ সমিতির যুগ্ম সাধারন সম্পাদক নুরু উদ্দিন খন্দকার স্বপন, সাবেক পৌর কাউন্সিলর রোটা. শাহিনুর হোসেন । এ ৪ জন জনপ্রিয়তার শীর্ষে রয়েছেন। তারপরেও নমিনেশন চাইবেন ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মোঃ জামাল হোসেন ভ্থইয়া, সাবেক ছাত্রলীগের সাধা্রন সম্পাদক নাসির উদ্দিন মিহির এবং সৈয়দ মাহফুজুর রহমান। কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য সাবেক পৌর চেয়ারম্যান বাহাদুরুজ্জামান।

স্থানীয় সরকার নির্বাচন সিলেকশন কমিটি তথা আওয়ামী লীগের সভাপতি জননেত্রী শেখ হাসিনা কার হাতে দলীয় প্রতীক তুলে দিবেন সেটা সময়ের ব্যাপার। অন্যদিকে বিএনপির প্রার্থী বর্তমান মেয়র জসিম উদ্দিন পাটোয়ারী ছাড়া আর কারো নাম উঠে আসে নি। এখানে জামাত, জাতীয় পার্টি কিংবা অন্য কোন দলের প্রার্থী নেই। দীর্ঘ দিনের পুঞ্জিভুত সমস্যা গুলো কারো আমলেই সমাধান হয় নি। তারপরেও সম্ভাব্য প্রার্থীরা অনেক প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন। এ প্রসঙ্গে বখতিয়ারের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, এখানকার ৯টি ওয়ার্ডে ৩৭ হাজার ভোটারদের নাগরিক জীবনের চাহিদা পূরনে আমি সচেষ্ট থাকবো। আর সেটা হবে আমার এলাকার মাননীয় সাংসদ নাসিমুল আলম চৌধুরী নজরুল এর দিক নির্দেশনা ও পৃষ্টপোষ্টকতার মধ্য থেকে। বখতিয়ার ১ নং ওয়ার্ডের ভোটার। পড়াশোনা বরুড়া থেকে শুরু করে কলেজ শেষ করেছেন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ থেকে। ছাত্র জীবনে ছাত্র লীগের রাজনীতি দিয়ে তার উত্থান। ২০০৪ সালের উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি নির্বাচিত হন আর ২০১৮ তে যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক। সম্প্রতি তিনি পৌর আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য সাধারন সম্পাদক নির্বাচিত হওয়ার সম্ভাবনা প্রচুর। রোটা. শাহিনুর হোসেন বরুড়া ৯ নং ওয়ার্ডের ভোটার। পড়াশোনা আড্ডা কলেজে। পরে শহরে অজিতগুহ কলেজ থেকে গ্রেজুয়েশন করেন। ১৯৯৬ থেকে ছাত্রলীগের রাজনীতি তে সম্পৃক্ত। মিছিল, মিটিং, সমাবেশের মধ্য দিয়ে তার রাজনীতির উত্থান। ২০১১ তে পৌর কমিশনার নির্বাচিত হন। বর্তমানে পৌর যুবলীগের আহ্বয়ক কমিটির সদস্য। তিনি বলেন, আগামীতে পৌর নির্বাচনে আমি থাকবো ইনশাআল্লাহ্। তিনি আরো বলেন, স্থানীয় সরকার নির্বাচন সিলেকশন কমিটি তথা, আমার নেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা আমার অতীতের কর্মকান্ড আর এলাকার গ্রহণযোগ্যতার বিষয়টি বিবেচনা করে আমাকে দলীয় ভাবে নমিনেটেড করবেন- সেই বিশ্বাসটুকু আমার রয়েছে। আর সে বিশ্বাসের উপর ভর করে আমি রাজনীতি আর সামাজিক কর্মকান্ড করে যাচ্ছি।
অন্য এক প্রার্থী খন্দকার স্বপন বলেন, পোর্ট ফলিউতে আমার পদ পদবী খুব একটা না থাকলেও ভাবছি না সে জন্য। আমার রাজনীতি- এলাকার মানুষের জন্য। তাদের পাশে থেকেই সামাজিক উন্নয়নের চেষ্টা করে যাচ্ছি। স্বপন ঢাকাস্থ বরুড়া জনকল্যাণ সমিতির যুগ্ম সাধারন সম্পাদক দীর্ঘদিন। আওয়ামী ঘরনার রাজনীতির পাশাপাশি তিনি বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের সাথে সম্পৃক্ত। এলাকার গরীব, মেধাবী ছাত্র ছাত্রীদের সহযোগীতা ছাড়াও তিনি দেওড়া মাধ্যমিক স্কুলের সভাপতি। তিনি বলেন, আমি নির্বাচিত হলে ১ টি প্রথম শ্রেনীর উপজেলা ভিত্তিক পৌরসভার উন্নয়নে সকল প্রতিকূলতার মধ্যে একে নান্দনিক করে তুলতে চেষ্টা করে যাবো আগামী দিন গুলোতে। এলাকার মানুষদের নিম্মতম চাহিদা পূরণে এখানকার ড্রেনেজ সিস্টেম, ষ্ট্রিট লাইট আর সুপেয় পানি ব্যবস্থা করা সম্ভব করা হবে। বাজেট আর বরাদ্দের উপর নির্ভর করে, আমার স্থানীয় এমপি নাসিমুল আলম চৌধুরী নজরুলের দিক নির্দেশনায় আর পৃষ্টপোষকতার মধ্য থেকেই আমি জনগণের সেবা করে যাবো আগামী ৫ টি বছর। অপর এক প্রার্থী রোটা. শাহিনুর হোসেন ৯ নং ওয়ার্ডের ভোটার। উচ্চশিক্ষিত এবং বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের সাথে নিজেকে দীর্ঘদ