ঢাকা, আজ শুক্রবার, ৪ ডিসেম্বর ২০২০

কুমিল্লায় হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের বাড়িঘর ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ

প্রকাশ: ২০২০-১১-০২ ০৪:১০:১৩ || আপডেট: ২০২০-১১-০২ ০৪:১০:১৩

ডেস্ক রিপোর্টঃ

ফ্রান্সে মহানবী হযরত মোহাম্মদ (সঃ) কে কটাক্ষ করে ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শন এবং অবমাননার ঘটনাকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে কমেন্টের মাধ্যমে সমর্থন ঘটনায় কুমিল্লায় হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের বাড়িঘর ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগের করেছে স্থানীয় একদল বাসিন্দা। রবিবার বিকেলে কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার বাঙ্গরা থানার ৪নং পূর্ব ধইর ইউনিয়নের কোরবানপুর গ্রামের এই ঘটনা ঘটে। এতে করে সেখানকার হিন্দু পরিবারের সদস্যদের মধ্যে আতংকে তৈরি হয়েছে।

আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দেয়া হয়েছে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান বনকুমার শিবের অফিস ও অভিযুক্ত শংকর দেবনাথের ঘর। হামলা ও ভাংচুর চালানো হয়েছে ৯/১০ পরিবারের বসত ঘরে। আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে কাজ করেছে স্থানীয় ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা।

এদিকে বাড়িঘর ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগের ছবি ও ভিডিও মুহুর্তের মধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে। পরিবেশ নিয়ন্ত্রণে আনতে তাৎক্ষনিকভাবে ছুটে যান স্থানীয় বাঙ্গরা থানার পুলিশ। এরপর কুমিল্লা জেলা প্রশাসক আবুল ফজল মীর, পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলামসহ প্রশাসনের বিভিন্ন সংস্থার কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে ঘটনাস্থলে ছুটে যান।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, শনিবার (৩১ অক্টোবর) কোরবানপুরের শংকর দেবনাথ নামে হিন্দু সম্প্রদায়ের এক ব্যক্তি ফ্রান্সে মহানবী (সঃ) এর ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শন এবং অবমাননা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের একটি পোস্টে হিন্দু সম্প্রদায়ের শংকর দেবনাথ নামে একব্যক্তি কমেন্টের মাধ্যমে সমর্থন জানিয়েছন। সমর্থনের ঘটনায় শংকর দেবনাথের বিরুদ্ধে একটি মামরা হয়েছে। ওই মামলায় রবিবার (১ নভেম্বর) পুলিশ শংকর দেবনাথসহ দুইজকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরণ করে। মামলার অন্য আসামী অনিক ভৌমিক মুরাদনগর উপজেলার পূর্ব ধইর ইউনিয়ন পাশ্ববর্তী ইউনিয়নের আনদিকোট গ্রামের জীবন ভৌমিকের ছেলে।

কুমিল্লার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ডিএসবি আজিমুল আহসান জানান, ওই ঘটনার রেশ ধরে রবিবার বিকেলে কোরবানপুরের স্থানীয় একদল বাসিন্দা স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান বনকুমার শিবের অফিস, গ্রেফতারকৃত আসামী শংকর দেবনাথের বাড়ি ঘরে অগ্নিসংযোগ এবং বেশ কিছু ঘর বাড়ি ভাংচুর করে। আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে স্থানীয় ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা কাজ করেছে। অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এছাড়া ঘটনা পরিদর্শনে কুমিল্লা জেলা প্রশাসক আবুল ফজল মীর, পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলামসহ প্রশাসনিক কর্মকর্তা ঘটনাস্থলে গিয়েছেন।