ঢাকা, আজ শনিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২০

চান্দিনায় ইউনিয়ন বিভাজনের সভায় সংঘর্ষের ঘটনায় দুই পক্ষের পাল্টা-পাল্টি মামলা

প্রকাশ: ২০২০-১০-০১ ১৩:৪৩:৫৪ || আপডেট: ২০২০-১০-০১ ১৩:৪৩:৫৪

চান্দিনায় মাইজখার ইউনিয়ন বিভাজনের সভায় সংঘর্ষে দুই পক্ষের পাল্টা-পাল্টি মামলা

চান্দিনা প্রতিনিধিঃ

কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার বৃহত্তর মাইজখার ইউনিয়ন বিভাজন করাকে কেন্দ্র করে অনুষ্ঠিত সভায় আওয়ামীলীগের দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় থানায় পাল্টা-পাল্টি মামলা দায়ের করেছে উভয় পক্ষ।

মঙ্গলবার (২৯ সেপ্টেম্বর) রাতে আহত মাইজখার ইউনিয়ন যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক মাহফুজ খান সেন্টু’র স্ত্রী সোমা আক্তার বাদী হয়ে ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শাহ সেলিম প্রধান গ্রুপের ৯জনের নাম উল্লেখ করে প্রথম মামলাটি দায়ের করেন। ওই মামলায় ১০/১২জনকে অজ্ঞাতনামা আসামী করা হয়েছে।

এর কয়েক ঘন্টা পর একই রাতে ইউপি চেয়ারম্যান শাহ্ সেলিম প্রধান এর গাড়ি চালক আবুল খায়ের বাদী হয়ে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক গ্রুপের ৯জনকে আসামী করে পাল্টা-মামলাটি দায়ের করা হয়। ওই মামলাও ১০/১২জনকে আসামী করা হয়।

এ ব্যাপারে চান্দিনা থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) শামসউদ্দীন মোহাম্মদ ইলিয়াছ জানান- ওই ঘটনায় উভয় পক্ষ পাল্টা-পাল্টি মামলা দায়ের করেছেন। আমরা ঘটনা তদন্ত করছি। তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

প্রসঙ্গত, ২৯ সেপ্টেম্বর দুপুরে ৩৫ সহস্রাধিক ভোটার অর্ধ্যুষিত মাইজখার ইউনিয়ন বিভাজনের জন্য দীর্ঘদিন যাবৎ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা। এ বিষয়ে মঙ্গলবার সকালে মাইজখার ইউনিয়ন পরিষদ কমপ্লেক্সে ইউনিয়নের জনপ্রতিনিধি ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে সভা অনুষ্ঠিত হয়।

মাইজখার ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শাহ্ সেলিম প্রধান এর সভাপতিত্বে এবং ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক মো. জসিম উদ্দিন এর সঞ্চালনায় সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ ভাবে চলছিল আলোচনা।

সভার সমাপ্তি লগ্নে সভাপতির বক্তব্য চলাকালিন সময়ে ইউনিয়ন যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক মাহফুজ খান সেন্টু উস্কানিমূলক কথা বললে সেলিম চেয়ারম্যান সমর্থিত রাসেল নামের অপর এক কর্মী সেন্টুর উপর চড়াও হয়। এতে দুই পক্ষের সংঘর্ষ সৃষ্টি হয়। মুহুর্তের মধ্যে ইউনিয়ন বিভাজন সভাটি রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। এতে দুই পক্ষের অন্তত ৭জন আহত হয়।