ঢাকা, আজ শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর ২০২০

কানাইঘাট পৌর নিবার্চনের আবারও আসতে চাইছেন মেয়র নিজাম উদ্দিন

প্রকাশ: ২০২০-০৯-২৯ ১৫:৩০:১১ || আপডেট: ২০২০-০৯-২৯ ১৫:৩০:১১

শান্তনু হাসান খান(বিশেষ প্রতিনিধি)

এবার দেশজুড়ে স্থানীয় সরকার নিবার্চন অনুষ্ঠিানের প্রস্তুতি নিচ্ছে নিবার্চন কমিশন (ইসি)। আগামী ডিসেম্বর থেকে কয়েক ধাপে ২৩৪ টি পৌরসভায় ভোটগ্রহণের আয়োজন চলছে। এর পর আগামী বছরের মার্চে ইউনিয়ন পরিষদের প্রথম ধাপের ভোটগ্রহণের পরিকল্পনা চলবে।

তবে চলতি বছর অক্টোবরের শেষ নাগাদ দেশে বেশ কয়েকটি ইউনিয়ন পরিষদের নিবার্চন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। আর সেই আলোকে দেশে বর্তমানে তিনশর বেশি পৌরসভা রয়েছে। এর মধ্যে ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর একযোগে ২৩৪ টি পৌরসভায় ভোট হয়। অন্যান্য পৌরসভার ভোট মেয়াদ অনুযায়ী বিভিন্ন সময়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

২০১৫ সালের ১৫ ডিসেম্বর যেসকল পৌরসভাগুলোর ভোট হয়েছিল তার বেশির ভাগের মেয়র ও কাউন্সিলররা পরের বছরের জানুয়ারি/ফেব্রুয়ারি মাসে শপথ নেন। ফেব্রুয়ারির মধ্যে তাদের প্রথম সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এ হিসেবে আগামী বছরের ফেব্রুয়ারিতে এসব পৌরসভার মেয়াদ শেষ হচ্ছে। আর সেই আলোকে এবার সিলেটের কানাইঘাট পৌর নিবার্চনের প্রাথর্ীরা মাঠে আছেন। কানাইঘাট পৌরসভার বর্তমান মেয়র মোঃ নিজাম উদ্দিনসহ আরো দু’চারজন আগামী নির্বাচনে অংশ নেবেন।

নিজাম উদ্দিন গতবার দলীয়ভাবে নমিনেটেড হতে পারেন নি। আওয়মী লীগের প্রাথর্ী হয়েও ঘরের শত্রুরা বাধ সেজে ছিল। আর তাই তাকে স্বতন্ত্র প্রাথর্ী হিসাবে নিবার্চনে অংশ নিতে হয়। বিপুল ভোটে পাশ করেন।  তিনি বলেন, আমি দীর্ঘদিন বঙ্গন্ধুর আদশঙৃ লালন করে আসছি। আমার বর্তমান নেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা। তাঁর ৭৪ তম জন্মদিবসে আমার অকৃত্রিম শ্রদ্ধা ও শুভেচ্ছা।

আমার দৃঢ় বিশ্বাস- স্থানীয় সরকার নিবার্চন সিলেকশান কমিটি আমার যোগ্যতা আর কর্মকান্ড বিবেচনা করে এবার দলীয় প্রতীক  দেবেন ইনশাল্লাহ্। কেননা বিগত দিনে দলের জন্য অনেক করেছি। বঙ্গবন্ধুর আদর্শ থেকে কখনো শ্রেনীচ্যুত হয়নি। দলের সাইনবোর্ড ঝুলিয়ে কোনো রাজনৈতিক বানিজ্য করিনি।

নিজাম উদ্দিন কানাইঘাটের ভোটার। পড়াশোনাটা গ্রাম থেকেই। পরে সিলেটে এম.সি কলেজ। ছাত্র অবস্থায় বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কমর্ী ছিলেন। দীর্ঘদিন ছাত্র রাজনীতির পর কানাইঘাট উপজেলা আওয়ামী লেিগের পরপর ২ বারের সাধারণ সম্পাদক এবং ১ বার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নিবার্চিত হন। মাঝপথে ২ বার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হিসাবে অংশ নেন। কিন্তু দলীয় প্রভাবের কারণে অল্প ভোটের ব্যবধানে কৃতকার্য হতে পারেন নি।

তিনি বলেন, নিজে গু্রপিংয়ের রাজনীতি করিনা। কাউকে করতে করতে উৎসাহ দেই না। নিজাম উদ্দিন বলেন- মাদক, সন্ত্রাস আর জঙ্গীবাদ এই তিনটি হচ্ছে উন্নয়নের প্রধান বাধা। মাদকের বিরুদ্ধে আমার অবস্থান জিরো টলারেন্স। আমি দলীয় প্রাথর্ী হিসেবে আগামীতে নমীনেটেড হয়ে উন্নয়নের জন্য জনগনের সহযোগিতা পাবো বলে আমার দৃঢ় বিশ্বাস।

কানাইঘাট মাত্র ৫ বর্গকিলোমিটারের ২য় শ্রেনীর পৌর শহর। বর্তমান মেয়রের আমলে ২য় শ্রেনীভুক্ত, তবে খুব সহসায় প্রথম শ্রেনীতে উন্নীত হবে। এজন্য এলাকার সাংসদ হাফিজ উদ্দিন মজুমদার প্রচেষ্টা অব্যহত রেখেছেন।

তার দিক নির্দেশনায় এলাকার উন্নয়ন চলছে। জিওবি/ আইডিবি থেকে ২১ প্রকল্পের আওতায় ১৭ কোটি ২৬ লাখ টাকার টেন্ডার ইতিমধ্যেই সমাপ্ত। সব মিলিয়ে ৪০ কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ হবে। মাত্র ৫৫ বছরের নিজাম উদ্দিন সারাজীবন আওয়ামী ঘরানা রাজনীতি করেছেন। বর্তমানে ২২হাজার ভোটারদের মাঝে ২০% নবীন ও তরুন ভোটাররা আগামীতে তাকে পুনরায় মেয়র নিবার্চন করতে তার পেছনে একাট্টা।