ঢাকা, আজ শনিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২০

অনলাইনে শিক্ষাব্যবস্থা ডিজিটাল বাংলাদেশের বহিঃপ্রকাশঃ জারিন তাসনিম এ্যানি

প্রকাশ: ২০২০-০৭-২৬ ১৩:৩৪:২২ || আপডেট: ২০২০-০৭-২৬ ১৩:৩৫:২৪

মহামারী করোনাভাইরাস আজ সমগ্র বিশ্বকে সর্বশান্ত করে দিচ্ছে। যার ফলে পুরো বিশ্বে বিরাজ করছে বৈশ্বিক সংকট। মনে হচ্ছে পুরো পৃথিবীটাই শূন্য থালার মতো থৈ থৈ করছে। এই দুঃসময়ে পৃথিবীর মানুষ অবরুদ্ধ নিষ্ক্রিয়তায় জীবন যাপন করছে।

এই মহামারীর ভয়াবহ ছোবলে পুরো বিশ্ব আজ স্তব্ধ। যার ভয়াবহতা থেকে বাদ যায়নি আমাদের এই বাংলাদেশও। এমতাবস্থায় পুরো বিশ্ব যেখানে থমকে গিয়েছে, সেখানে খুব স্বাভাবিকভাবেই আমাদের শিক্ষাব্যবস্থাও স্থবির। করোনা ভাইরাসের ফলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে অনেক দিন ধরেই।

এতে করে শিক্ষার্থীরা গৃহবন্দি জীবন যাপন করছে। যার প্রভাবে তাদের মধ্যে পড়াশোনার প্রতি অনীহা, হতাশা এবং একঘেয়েমি ভাব বিরাজ করছে। শিক্ষার্থীদের এই অবস্থা থেকে উত্তোরনের জন্য একমাত্র যুগোপযোগী ব্যবস্থা হলো অনলাইন ক্লাস। যার মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের পড়াশোনার ধারাবাহিকতা বজায় থাকবে বলে আমি মনে করি। পাশাপাশি এই অনলাইন ক্লাস শিক্ষার্থীদের সেশনজট নিরসনে যুগোপযোগী ভূমিকা রাখবে।

আমি নিজেই পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী হিসেবে উপলব্ধি করছি যে, এই মহামারীতে আমাদের জন্য অনলাইন ক্লাস অতি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। প্রকৃতপক্ষে বর্তমান পরিস্থিতিতে আমাদের মতো নিম্ন আয়ের দেশে স্থবির শিক্ষা ব্যবস্থাকে গতিশীল রাখার একমাত্র উপায় অনলাইন ক্লাস।

যাহোক, সম্প্রীতি ইউজিসি সকল পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের অনলাইন ক্লাস নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে এবং ক্লাসও শুরু করে দিয়েছে। অনলাইন ক্লাস করে আমার মনে হচ্ছে, লকডাউন থেকে যতটা শূন্যতা অনুভব করেছি, সেই শূন্যতা কাটিয়ে আলোর পথ খুঁজে পেয়েছি। যখন জুম বা ফেসবুক লাইভে ক্লাস করি তখন মনে স্বস্তি ফিরে পাই।

কেননা বন্ধুবান্ধব ও শিক্ষকদের সাথে ভার্চুয়াল যোগাযোগটা আলাদা একটা মজা তা আগে কখনো উপলব্ধি করিনি। তবে ক্লাস করতে গিয়ে কিছু সমস্যার সম্মুখীন হলেও সহপাঠী এবং শিক্ষকদের সাথে অনেকদিন পর আবার ক্লাসের আসরে বসতে পেরে খুবই আনন্দ উপভোগ করছি। শিক্ষকগণও খুব আন্তরিকতার সাথে ক্লাস নিচ্ছেন এবং ক্লাসগুলো রেকর্ডিং করে রাখছেন যাতে পরবর্তীতে যেসব শিক্ষার্থী অনলাইন ক্লাসে অনুপস্থিত থাকে সেই ক্লাস গুলো আবার দেখতে পারে। সর্বোপরি, অনলাইন ক্লাস আমাদের মতো সকল শিক্ষার্থীর জন্য আশীর্বাদস্বরূপ।

উন্নত বিশ্বের দেশগুলো প্রযুক্তিগত দিক দিয়ে এগিয়েছে অনেক দূর। তাই তারা প্রযুক্তি দ্বারা অনেক সমস্যা সমাধানও করে থাকে। যদিও কিছু বছর আগেও বাংলাদেশ প্রযুক্তিগত দিক থেকে অনেক পিছিয়ে ছিল কিন্তু বর্তমানে বাংলাদেশে ডিজিটালাইজেশনের কারণে প্রযুক্তিগত দিক থেকে অনেক অগ্রগতি লাভ করেছে।যেমন, বর্তমানে এই মহামারী পরিস্থিতিতে দেশে যে অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রম চালু হয়েছে সেটা ডিজিটাল বাংলাদেশের অন্যতম বহিঃপ্রকাশ।

ডিজিটাল বাংলাদেশ রূপকল্প বাস্তবায়নে সরকার যে সুনির্দিষ্ট বিষয়গুলো গুরুত্ব দিয়েছেন তার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার। সর্বোপরি আমি বলতে পারি ,অনলাইন শিক্ষা ব্যবস্থার রূপকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে মূলত বাংলাদেশ ডিজিটালাইজেশনের কারণে।

শিক্ষার্থী

লোকপ্রশাসন বিভাগ, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়।