ঢাকা, আজ বুধবার, ২১ অক্টোবর ২০২০

করোনাকালীন সময়ে অনলাইন শিক্ষা ব্যবস্থা

প্রকাশ: ২০২০-০৭-২১ ০৭:৫২:২৯ || আপডেট: ২০২০-০৭-২১ ০৭:৫২:২৯

আবু বক্কর ছিদ্দিক,বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি

করোনা নামের মহামারী তুমি যাও, তুৃমি যাও একটা বিনীত অনুরোধ তোমার ভয়টাকে রেখে যাও। ওগো ভয় তোমারই হোক জয় তোমারই হোক। তুমি নির্ভীক তরবারী তুমি নির্মেদ অক্ষয় তোমারই হোক জয়।

গত ৩১ শে ডিসেম্বর চীনের উহানে করোনা সনাক্ত হওয়ার পর এর বিশ্বায়ন হয়েছে খুব দ্রুত। এই মহামারী মোকাবেলার জন্য একে একে প্রায় সব দেশে লকডাউন করেছে। বাদ যায়নি বাংলাদেশ নামক জনমানবপূর্ন আমাদের এই ছোট্ট দেশটিও।

লকডাউনের কারনে প্রায় সব খাতেই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। কেউ বলেছ আর্থিক সংকটের কথা কেউ বলছে খাদ্য সংকটের কথা আবার কেউ বা বলছে চিকিৎসা সংকটের কথা। কিন্তু সবার অগোচরে ভয়াবহ শিক্ষা সংকটের দিকে যাচ্ছে বাংলাদেশ। করোনা ভাইরাসের কারনে সৃষ্ট অন্য সংকট গুলো হয়তো একটা নির্দিষ্ট সময়ে কেটে যাবে কিন্তুু শিক্ষা সংকট জাতির জন্য দীর্ঘ মেয়াদি ভোগান্তি নিয়ে আসবে।

আমরা জানি শিক্ষাই জাতির মেরুদণ্ড কিন্তু এটা অতি পুরাতন কথা। বর্তমান প্রেক্ষাপটের উপর ভিত্তি করে বলা যায় আধুনিক তথা কর্মমুখী শিক্ষা ছাড়া শিক্ষা মূলহীন।

শিক্ষার্থীরা যেন সেশনজোটে না পরে সেই দিকে লক্ষ রেখে শিক্ষা কার্যক্রম বহাল রেখেছে অনলাইন ক্লাসের মাধ্যমে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে অনলাইন শিক্ষা সেবা প্রদান করতে বলা হলেও এই অনলাইন শিক্ষা পৌঁছাতে পারেনি শতভাগ শিক্ষার্থীদের কাছে। তবে আস্তে আস্তে এই শিক্ষার গুনগত মান বৃদ্ধি পাচ্ছে। অনলাইন শিক্ষা সেবা সবার কাছে না পৌঁছানোর প্রধান কারন হলো দুর্বল নেটওয়ার্ক ব্যবস্থা। তবে দেখা যাচ্ছে গ্রামে বসবাসকারী শিক্ষার্থীরা এই সেবা গ্রহন করতে ব্যর্থ হলেও শহরের শিক্ষার্থীরা সফল ভাবেই নিচ্ছে অনলাইন শিক্ষা সেবা। আবার এই শিক্ষা পদ্ধতি সামর্থের সাথে জরিত থাকার কারনেও অনেকে পারছেনা অনলাইন শিক্ষা গ্রহন করতে। কম্পিউটার, লেপটপ বা স্মার্ট ফোন নাই এমন শিক্ষার্থীরও খোজ মিলেছে অনেক। তবে জানা গেছে অনলাইন শিক্ষা গ্রহন করার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের বাড়ছে প্রযুক্তিগত জ্ঞান।

শিক্ষার্থীদের প্রত্যাশা এই করোনা মহামারীকে জয় করে তারা আবারও সবাই নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানে স্বশরীরে গিয়ে ক্লাস করবে।

লেখকঃ আবু বক্কর ছিদ্দিক
শিক্ষার্থী,ফার্মেসি বিভাগ।
ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি।