ঢাকা, আজ বুধবার, ২১ অক্টোবর ২০২০

মুরাদনগরে ইউপি চেয়ারম্যানের নির্দেশে যুবকের পায়ের রগ কেটে হাত ভেঙ্গে দেয় মাদকসেবীরা

প্রকাশ: ২০২০-০৭-০৪ ১৩:২৩:৫৮ || আপডেট: ২০২০-০৭-০৪ ১৩:২৩:৫৮

মুরাদনগর (কুমিল্লা) সংবাদদাতা: কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলায় দারোরা ইউনিয়নের কাজিয়াতল গ্রামের সাইফুল ইসলাম নামে এক যুবকের ডান হাত ভেঙ্গে এবং ডান পায়ের গোড়ালীসহ রগ কেটে দিয়েছে ওই ইউপির চেয়ারম্যানের পালিত মাদকসেবী দুর্বৃত্তরা।

গত বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলার কাজিয়াতল গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। গুরুতর আহত সাইফুলকে মুরাদনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। তিনি বর্তমানে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে।

সাইফুল ইসলাম (২২) বাড়ি উপজেলার কাজিয়াতল গ্রামে। তার বাবার নাম মৃত মোসলেম উদ্দিন এবং মা রোকেয়া বেগম পেশায় একজন ভিক্ষুক।

হাসপাতালে শর্যাশায়ী সাইফুল জানান, টাকা দিয়ে আমার মায়ের বিধবা ভাতা করা নিয়ে দারোরা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান শাহজাহান ও স্থানীয় মেম্বার ফজলুর রহমানের সঙ্গে আমাদের বিরোধ রয়েছে। স্থানীয় সমাজপতি ও সাংবাদিককে বিষয়টি জানালে এর জের ধরে চেয়ারম্যানের নির্দেশে তার পায়ের রগ কেটে দেয়াসহ ডান হাত ভেঙ্গে দেয়া হয়েছে।

তিনি আরো জানান, বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে সাতটার দিকে সাইফুল তার জেঠাত ভাইয়ের ঘরে ভাত খেতেছিলেন, জানতে পেরে চেয়ারম্যান তার লোকজন দিয়ে তাকে ঘরের ভেতর যেয়ে আটক করান এবং তাকে ঘরের ভেতরই মারধর করেন।
চেয়ারম্যানের টেলিফোন পেয়ে চেয়ারম্যানের ক্যাডার অলি, নাঈম ও আলআমীন নির্দেশ মোতাবেক সাইফুলের ডান হাতের কব্জি ভেঙ্গে এবং ডান পায়ের গোড়ালীসহ রগ কেটে ফেলে চলে যায়। চিৎকার শুনে প্রতিবেশীরা সাইফুলকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়।

স্থানীয়রা জানান, চেয়ারম্যান শাহজাহানের বিরুদ্ধে বহু দূর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ রয়েছে যার তদন্ত চলছে তাছাড়া চেয়ারম্যান সন্ত্রাসী প্রকৃতির লোক। তিনি বিভিন্ন অনিয়মে জড়িত। চেয়ারম্যানের সন্ত্রাসীদের কর্মকান্ডে মুরাদনগর থানায় একাধিক অভিযোগ রয়েছে। এছাড়াও গত ৩০ জুন মুরাদনগর থানায় এ চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে দারোরা ইউপি যুবলীগের সভাপতিকে হত্যার চেষ্টায় মামলায় এফআইর ভুক্ত হয়েছে। মুরাদনগর থানার মামলা নং-৩ তারিখ: ৩০-০৬-২০২০ইং।

এলাকার একাধিক আওয়ামী লীগ নেতা বাড়িতে হামলা, ভাঙচুর ও লুটপাট ও মিথ্যা মামলায় মানুষকে হয়রানীর বহু অভিযোগ রয়েছে ওই চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে । জামিন না নিয়ে এখনো তিনি প্রকাশ্যে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড চালাচ্ছেন।

সাইফুলের হাত ভেঙ্গে দেয়াসহ তার পা কেটে ফেলার বিষয়ে কথা বলতে একাধিকবার ফোন করা হলেও চেয়ারম্যান শাহজাহান ফোন রিসিভ করেননি। তার বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

শুক্রবার সন্ধ্যায় সাইফুল বাদী হয়ে ১১ জনকে আসামী করে মুরাদনগর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

মুরাদনগর থানার এসআই জালাল জানান, তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তবে কাউকে আটক করা হয়নি। কারা ঘটনা ঘটিয়েছে, তা তারা তদন্ত করে দেখছেন।