ঢাকা, আজ সোমবার, ১৯ অক্টোবর ২০২০

কুমিল্লায় অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে আওয়ামীলীগ নেতা কারাগারে!

প্রকাশ: ২০২০-০৭-০৩ ০৯:২৮:৫১ || আপডেট: ২০২০-০৭-০৩ ০৯:২৮:৫১

-অনলাইন ডেস্কঃ  প্রতারনার মাধ্যমে অর্থ আত্মসাৎ করার অভিযোগে লালমাই উপজেলার পেরুল দক্ষিণ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি, পেরুল গ্রামের লোকমান হোসেন কে গ্রেফতার করেছে লালমাই থানা পুলিশ। ২ জুলাই বৃহস্পতিবার দুপুরে আটকের পর তাকে আদালতে হাজির করলে বিচারক শ্রীঘরে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

এর আগে গত ১লা জুলাই মেসার্স নূর টেড্রার্স এর মালিক ও পেরুল দক্ষিণ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জি. নূরে আলম সুমন আ.লীগ নেতা লোকমানের বিরুদ্ধে লালমাই থানায় অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে একটি মামলা (নং ০২, ধারা দ-বিধি-৪০৮/৫০৬, তাং ১/৭/২০২০ইং) দায়ের করেন।

অভিযোগের বিবরণে জানা যায়, আওয়ামীলীগ নেতা নূরে আলম সুমনের মালিকানাধীন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান নূর টেড্রার্সে দু’বছর ধরে অফিস সহকারী হিসেবে চাকরী করে আসছেন আওয়ামীলীগ নেতা লোকমান হোসেন। পাশাপাশি বিভিন্ন উন্নয়নমূলক প্রজেক্টে নূর ট্রেডার্সের পক্ষে তিনি সুপারভাইজার হিসেবেও অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করেছেন।

এই সুযোগে গত ১৯ মে মেসার্স এইচ কবীর বিল্ডার্স এর মালিক হুমায়ুন কবির থেকে ইস্যুকৃত (মেসার্স নূর ট্রের্ডাস এর পক্ষে) বকেয়া বাবদ ৪ লক্ষ টাকার (চেক নং ০০০০১১৮) ও ১লক্ষ ৮ হাজার টাকার (চেক নং ০০০০১২১) শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক, কুমিল্লা শাখার দুটি একাউন্ট পে চেক আনতে গিয়ে লোকমান হোসেন নিজের নামে চেকগুলো করিয়ে নেন এবং একটি চেক দিয়ে ৪লক্ষ টাকা উত্তোলন করে আত্মসাৎ করেন। এরপর বার বার তাগাদা দেওয়ার পরও লোকমান হোসেন টাকা ফেরত না দিয়ে উল্টো নূর ট্রেডার্সের মালিক নূরে আলম সুমন কে প্রাণে হত্যাসহ বিভিন্ন হুমকি ধমকি দিতে শুরু করে।

মামলার বাদী নূরে আলম সুমন বলেন, মাসিক জনপ্রতি ১৫ হাজার টাকা বেতনে ভাটরার জাফর কন্ট্রাক্টর ও পেরুলের লোকমান হোসেন আমার ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স নূর ট্রেডার্সে দু’বছর ধরে চাকরি করে আসছে। এই সুযোগে গত ১৯ মে মেসার্স এইচ কবীর বিল্ডার্স এর মালিক থেকে আমার পক্ষে বকেয়া বাবদ ৪ লক্ষ টাকা ও ১লক্ষ ৮ হাজার টাকার ২টি একাউন্ট পে চেক আনতে গিয়ে লোকমান হোসেন নিজের নামে চেক দুটি করিয়ে নেয় এবং একটি চেকের মাধ্যমে ৪লক্ষ টাকা উত্তোলন করে আত্মসাৎ করে। সম্প্রতি প্রতিষ্ঠানের হরিশ্চরস্থ অফিস থেকে আমার মালিকানাধীন মেসার্স স্পিনটেক্ ইন্টারনেশন্যাল এর গুরুত্বপূর্ণ কিছু ডকুমেন্ট খোয়া গেছে।

লালমাই থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ আইয়ুব বলেন, মামলা রুজুর পর কর্মচারী কর্র্তৃক টাকা আত্মসাতের প্রাথমিক স্বাক্ষ্যপ্রমান পেয়ে তদন্তকারী কর্মকর্তা এজাহার নামীয় আসামী লোকমান হোসেন কে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করেছেন।
সুত্রঃ- লালমাই বার্তা