ঢাকা, আজ মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর ২০২০

ভারতবিরোধী সঙ্গীত নেপালের রেডিওতে বাজছে,শোনা যাচ্ছে ভারত থেকেও

প্রকাশ: ২০২০-০৬-২২ ২০:৩২:৫৩ || আপডেট: ২০২০-০৬-২২ ২০:৩২:৫৩

অনলাইন ডেস্কঃ

একদিকে চিন, অপরদিকে পাকিস্তান। এবার তার মধ্যে নেপাল। সীমান্ত নিয়ে রীতিমতো নাজেহাল ভারত। বৃহস্পতিবার সে দেশের সংসদের উচ্চকক্ষ অর্থাৎ জাতীয় সভা’তেও পাশ হয়ে গিয়েছে নতুন মানচিত্র বিল।

ভারতের তিনটি ভূখণ্ড উত্তরাখণ্ডের লিম্পিয়াধুরা, কালাপানি ও লিপুলেখকে নিজেদের দাবি করে নয়া মানচিত্র তৈরি করেছে নেপালের কমিউনিস্ট সরকার। শুধু তাই নয়, ভারত বিরোধী সুর যে নেপাল ভালোভাবেই চড়াচ্ছে, তা বারবার প্রমাণ দিচ্ছে তারা। এখন নেপালের রেডিওতে দিনভর বাজানো হচ্ছে ভারত বিরোধী গান।

ঠিক যেভাবে দক্ষিণ কোরিয়ার বিরুদ্ধে রেডিওতে লাগাতার প্রচার চালায় কিমের উত্তর কোরিয়া, নেপালও ভারতের ক্ষেত্রে সেই পথই অবলম্বন করেছে। আর এতেই বেজায় সমস্যায় পড়েছেন উত্তরাখণ্ডের পিথোরাগড়ের ধরচুলা, ঝুলাঘাটের মতো এলাকার বাসিন্দারা।

কারণ নেপালি চ্যানেল হলেও মে মাস থেকে কালাপানি রেডিও, নয়া নেপালের মতো রেডিও চ্যানেলগুলি ভারতের ওই এলাকার বাসিন্দারাও শুনতে পাচ্ছেন। দিনরাত তাতে চলছে ভারত বিরোধী কুৎসাও। ফলে ভারতবাসী হিসেবে ওই অঞ্চলের মানুষজন বেশ বিরক্ত হচ্ছেন, শুধু তাই নয় অনেকে রেডিও শোনাও বন্ধ করে দিয়েছেন।

ভারতীয় প্রশাসন সূত্রে দাবি, কথা বলে সমস্যা সমাধানের ব্যাপারে কোনও আগ্রহ দেখায়নি কাঠমান্ডু। ভারতের এলাকা তাদের বলে দাবি করার এই সিদ্ধান্ত ‘অদূরদর্শী এবং আত্মকেন্দ্রিক’।

যে দ্রুততায় নেপালের উভয়কক্ষে বিলটি পাশ করানো হয়েছে, তার নিন্দা করে ভারতের বক্তব্য, সীমান্ত বদলের ক্ষেত্রে কোনও ঐতিহাসিক তথ্য প্রমাণ নেপালের কাছে নেই। ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের স্পষ্ট বক্তব্য, ‘এ ভাবে জোর করে ভূখণ্ড বাড়িয়ে নেওয়ার চেষ্টা মোটেই গ্রহণযোগ্য নয়, এটি আলোচনার মাধ্যমে সীমান্ত-সমস্যা মেটানোর চুক্তির পরিপন্থী।’

১৮১৫ সালে ব্রিটিশ সরকার এবং তৎকালীন নেপালের রাজার মধ্যে হওয়া ‘সুগৌলি চুক্তি’ অনুযায়ী কালী নদীর পশ্চিমপাড়ের সব ভূখণ্ডের সত্ত্ব ত্যাগ করে নেপাল আর তাই কালী নদীর গতিপথ অনুসরণ করেই ভারত ও নেপালের সীমান্ত নির্ধারিত হয়। ১৮১৭ সালে তিনকর, ছাংড়ু, নভি এবং কুঠি গ্রামকে তাদের এলাকা বলে দাবি জানাতে থাকে নেপাল।

তিনকর এবং ছাংড়ু কালী নদীর পূর্বদিকে বলে তা নেপালকে দিয়ে দেন ভারতের তৎকালীন গভর্নর জেনারেল কিন্তু বাকি দু’টি কালী নদীর পশ্চিম পাড়ে অবস্থিত বলে সত্ত্বাধিকার ছাড়েনি ভারত। কালী নদীর উৎস সংক্রান্ত বিবাদও তখনই মিটিয়ে নেওয়া হয়।

কিন্তু নেপাল দাবি করতে থাকে, কুঠি ইয়াংক্তি এবং লিপুগড় নদীর (যা কালী নদীতে গিয়ে পড়েছে) গতিপথ অনুযায়ী ওই দু’টি গ্রামও তাদেরই। ১৯৯৭, ১৯৯৮ এবং ২০১৪ সালে সীমান্ত নিয়ে আলোচনায় বসে দু’দেশ। সমস্যা ঘোরালো হয় গত ৮ মে ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং যখন কৈলাস মানসরোবর যাওয়ার জন্য লিপুলেখ দিয়ে নতুন রাস্তার সূচনা করেন।

লিপুলেখ তাদের এলাকা বলে সরব হয় নেপাল। ভারত আলোচনার প্রস্তাব দিলেও নেপাল আগ্রহ দেখায়নি। বদলে তারা মানচিত্র বদলে দেয়।

ভারতের আরও অভিযোগ, বিহারের নরসাহী ও সুস্তা এলাকায় নিজেদের লোকবসতি তৈরি করে এলাকা দখল করতে চাইছে নেপাল।

সূত্র: ইন্ডিয়া টাইমস