ঢাকা, আজ শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০

হোমনায় ইউপি চেয়ারম্যান তাইজুল ইসলামের সরকারী ও ব্যাক্তিগত তহবিলের ত্রান প্রদান অব্যাহত

প্রকাশ: ২০২০-০৫-১১ ১৪:৪২:৫৬ || আপডেট: ২০২০-০৫-১১ ১৪:৪২:৫৬

হোমনা প্রতিনিধি।।

করোনা মহামারীর কারনে সরকারী বেসরকারী ও ব্যাক্তিগত ত্রান প্রদান অব্যাহত রয়েছে। সরকারী ত্রানের পাশাপাশি ব্যাক্তিগত সহযোগিতা দিয়ে ইউনিয়ন বাসীর সেবা করে যাচ্ছে জনপ্রতিনিধি গন। তাদেরই একজন কুমিল্লা হোমনা উপজেলার ৯ নং জয়পুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ তাইজুল ইইসলাম মোল্লা।যিনি সরকারী সহায়তা সঠিকভাবে বন্টনের পরও তার ব্যাক্তিগত তহবিল থেকে করোনা ভাইরাসের কারনে কর্মহীন অসহায়দের মাঝে খাদ্য সামগ্রীর পাশাপাশি নগদ অর্থ ও বিতরন করছেন। ইউনিয়ন পরিষদ সূত্রে জানা যায়,করোনা মহামারী অাকার ধারন করার পর জেলা প্রশাসন ও উপজেলা প্রশাসনের মাধ্যমে ইউনিয়ন পরিষদেন চেয়ারম্যানদের মাধ্যমে প্রথমে অসহায় ৫০ টি পরিবারের জন্য. ৫ টন চাউল বরাদ্ধ হয়,তারপর জেলা প্রশাসকের ত্রান তহবিল থেকে মোট ৩৫ প্যাকেট(প্রতি প্যাকে ১০ কেজি চাউল,ডাল,তেল,অালু),৮ প্যাকেট শিশু খাদ্য, উপজেলা প্রশাসন হতে কর্মহীনদের জন্য ১ টন যা ১০০ পরিবারের মাঝে বন্টন করা হয়,অাবার ২ টন যা ১০ কেজি করে ২০০ পরিবারের মাঝে বন্টন করা হয় এভাবে কয়েক ধাপে ১০ কেজি করে মোট ৫৯১ পরিবারের মাঝে সরকারী ত্রান সহায়তা পৌছে দেয়া হয়েছে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে।অারো ২০০ প্যাকেট অাগামীকাল প্রদান করা হবে। চেয়ারম্যান তাইজুল ইসলাম তার ব্যাক্তিগত উদ্যেগে ১৫০ টি পরিবারের মাঝে চাউল, অাটা,ডাল,অালু,সাবান প্রদান করেন।এছাড়া তিনি তার ফেইসবুকে অসহায় যাদের সাহায্যের প্রয়োজন তার নাম্বারে যোগাযোগ করার অাহবান জানান।এ ভাবে তিনি খাদ্যদ্রব্যের পাশাপাশি নগদ অর্থ ও প্রদান করেন।এ প্রক্রিয়া মহামারী শেষ না হওয়া পর্যন্ত অব্যাহত থাকবে বলেও তিনি জানান।এছাড়া তিনি সচেতনতার অংশ হিসেবে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করার জন্য এলাকার তরুন শিক্ষিত যুবকদের নিয়ে দিনরাত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। তিনি সচেতনতার অংশ হিসেবে মাস্ক বিতরন করেন। এছারা তিনি এলাকার বিত্তশালীদের মাধ্যমে ও অসহায়দের মাঝে ত্রান সামগ্রী বিতরন করেন।
এ বিষয়ে চেয়ারম্যান মোঃ তাইজুল ইসলাম মোল্লা জানান,সরকারী ত্রান সহায়তা যেন সঠিকভাবে বন্টন হয় এজন্য সকল ইউপি সদস্য ও এলাকার মুরব্বীদের নিয়ে তালিকা করে প্রকৃত অসহায়দের মাঝে পৌছে দিয়েছি এছাড়া অামার ব্যাক্তিগত তহবিল হতে খাদ্য সামগ্রী ও নগদ অর্থ সহায়তা প্রদান করি।পূর্বে ১৫০ টি পরিবারকে ব্যাক্তিগত সহযোগিতার পাশাপাশি নতুন করে অারো ২০০ পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরন করা হবে।এ প্রক্রিয়া মহামারী শেষ না হওয়া পর্যন্ত অব্যাহত থাকবে। তিনি এ মহামারীতে দিন রাত জনগনকে ঘরে থাকার জন্য ও সরকারী সহায়তা জনগনের মাঝে পৌছে দিতে কাজ করে যাওয়ায় কুমিল্লা-২ (হোমনা-তিতাস) অাসনের সংসদ সদস্য সেলিমা অাহমাদ মেরী,কুমিল্লার সুযোগ্য জেলা প্রশাসক,পুলিশ সুপার,হোমনা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ প্রশাসন ও অাইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান।