ঢাকা, আজ মঙ্গলবার, ১৫ জুন ২০২১

চৌদ্দগ্রামে মেয়েকে ধর্ষনের অভিযোগে রিকশাচালক বাবা আটক

প্রকাশ: ২০২১-০৫-৩১ ১২:৩৩:৩৬ || আপডেট: ২০২১-০৫-৩১ ১২:৩৩:৩৬

চৌদ্দগ্রাম প্রতিনিধিঃ

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে আমের জুসের সাথে চেতনা নাশক দ্রব্য খাইয়ে স্কুল পড়ুয়া মেয়েকে ধর্ষণের অভিযোগে রিকশা চালক বাবা লিটন মিয়াকে আটক শেষ জেলহাজতে পাঠিয়েছে পুলিশ। পৌর এলাকার রামরায়গ্রামে এ হীন মানসিকতার ঘটনাটি ঘটে। আটককৃত লিটন মিয়া নেত্রকোণা জেলর আটপাড়া থানার মরাকান্দা গ্রামের বাসিন্দা। এ ঘটনায় ধর্ষিতার মা হাজেরা বেগম বাদি হয়ে স্বামী লিটন মিয়ার বিরুদ্ধে থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। সোমবার তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন চৌদ্দগ্রাম থানার উপ-পরিদর্শক আবুল কাদের।

তিনি জানান, ধর্ষিতা স্কুল ছাত্রীর বয়স ১৭ বছর। সে চৌদ্দগ্রামের স্থানীয় একটি স্কুলের ৮ম শ্রেণীর ছাত্রী। গত ৭ এপ্রিল লিটন মিয়া তাঁর মেয়েকে একা পেয়ে আমের জুসের সাথে চেতনা নাশক দ্রব্য খাইয়ে অচেতন শেষে ধর্ষণ করে। পরে মেয়েকে ভয় দেখিয়ে আরও একাধিক বার ধর্ষণ করে। বিষয়টি মেয়ে তঁাঁর ছোট বোনকে জানালে ছোট বোন মা হাজেরাকে জানায়। হাজেরা ৩০ মে রোববার স্বামী লিটন মিয়ার বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করে।
পুলিশ তদন্ত করে ঘটনার সত্যতা পেয়ে অভিযুক্ত লিটন মিয়াকে আটক করে।

ধর্ষিতার মা হাজেরা বেগম জানান, তিনি একজন মাটি কাটার শ্রমিক। প্রতিদিনের মত তিনি মাটি কাটতে চলে যান। ঘটনার প্রথম দিনে লিটন মিয়া রিকশা চালিয়ে চৌদ্দগ্রাম বাজার থেকে আমের জুস কিনে নিয়ে সাথে চেতনা নাশক দ্রব্য খাইয়ে তাঁর মেয়েকে একাধিক বার ধর্ষন করে। এছাড়া ধর্ষণের ঘটনা প্রকাশ করলে মেয়েকে হত্যার হুমকি দিয়ে বহুবার ধর্ষণ করে। আমি এই নরপিশাচের বিচার চাই।

এ ব্যাপারে চৌদ্দগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শুভ রঞ্জন চাকমা জানান, ধর্ষিতার মায়ের দায়েরকৃত মামলায় অভিযুক্ত লিটন মিয়াকে গ্রেফতার করে জেলা হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। এছাড়াও ভিকটিমের মেডিকেল সম্পন্ন করতে কুমিল্লায় প্রেরণ করা হয়েছে।