ঢাকা, আজ মঙ্গলবার, ১৫ জুন ২০২১

অনুসন্ধানী সাংবাদিক রোজিনার মুক্তির দাবিতে মেঘনায় মানববন্ধন

প্রকাশ: ২০২১-০৫-১৯ ১২:১৩:৫৭ || আপডেট: ২০২১-০৫-১৯ ১২:১৮:৫৩

মেঘনা উপজেলা সংবাদদাতা, মো :সজীব মিয়া

দৈনিক প্রথম আলোর সিনিয়র রিপোর্টার রোজিনা ইসলামকে নির্যাতন করে গ্রেফতার করার প্রতিবাদ ও তার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার (১৯ মে) বিকাল ৪টায় মেঘনায় উপজেলার প্রেসক্লাবের আয়োজনে মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করে কর্মরত সাংবাদিকরা। মানববন্ধন কর্মসূচীতে সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলাকে মিথ্যা ও ষড়যন্ত্রমূলক আখ্যায়িত করে অবিলম্বে তাঁকে নিঃশর্ত মুক্তি দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন সাংবাদিকরা।
মেঘনা উপজেলা প্রেসক্লাবের আহবায়ক মাহমুদুল হাসান বিপ্লব সিকদারের সভাপতিত্বে ও যুগ্ম আহবায়ক জাকির হোসেনের সঞ্চালনায় মানব বন্ধনে বক্তব্য রাখেন মেঘনা উপজেলা প্রেসক্লাবের আহবায়ক কমিটির সদস্য সচিব মো: শহীদুজ্জামান রনি, দৈনিক দেশ পত্রিকার মেঘনা প্রতিনিধি মোঃ মহসিন ভূইয়া, দৈনিক নয়াদিগন্তের মোঃ নাজমুল হোসেন, কবি সাহিত্যিক আতিক রহমান, দৈনিক আজকের মেঘনার আলাউদ্দিন ইসলাম।
এসময় কর্মরত সাংবাদিকদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, দৈনিক সমাচার দর্পণের মেঘনা প্রতিনিধি আলম শাহ অয়ন, সি এন এন বাংলা টিভির জাহাঙ্গীর আলম, দৈনিক আমার সংবাদের হাসিবুল হাসান আরিফ, দৈনিক আজকের বিজনেস বাংলাদেশের শরিফ হোসেন অপু, দৈনিক কুমিল্লা প্রতিদিনের মোঃ সজিব মিয়া,এম টিভির মিজানুর রহমান, প্রতিবাদী সোনারগাঁওয়ের নাজিম উদ্দিন, ফাহিম আহমেদ নাজির প্রমুখ।
মানবন্ধনে বক্তারা বলেন, প্রথম আলোর সিনিয়র সাংবাদিক রোজিনা ইসলাম গত কয়েক মাস ধরেই স্বাস্থ্য খাতের বিভিন্ন দুর্নীতি নিয়ে সংবাদ প্রকাশ করে যাচ্ছিলেন। তাঁর অনুসন্ধানী রিপোর্টের মাধ্যমেই দেশবাসীর সামনে এ করোনা মহামারির মধ্যেও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দুর্নীতির চিত্র ফুটে ওঠেছে। সোমবার (১৭ মে) তাকে মন্ত্রণালয়ের একটি নথি চুরির মিথ্যা অভিযোগে প্রায় ৫ ঘণ্টা আটকে রেখে নির্যাতন করে পরে পুলিশের কাছে তুলে দেওয়া হয়। উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে রোজিনা ইসলামের নামে অভিযোগ দেওয়া হয়েছে। করোনা মহামারির মধ্যেও স্বাস্থ্যখাতে অনিয়ম-দুর্নীতির মুখোশ সবার সামনে উন্মোচিত করায় রোজিনা ইসলামকে সরকারের আক্রোশের মুখে পড়তে হয়েছে। রোজিনা ইসলাম একজন সৎ এবং মেধাবী সাহসী সাংবাদিক। তাকে নির্যাতন করে দুর্নীতির নিউজ বন্ধ করা যাবে না। বরং যারা একাজে জড়িত তাদের চেহারা আরও উন্মোচিত হবে। সাংবাদিকতা আমাদের অস্ত্র। আমরা সাংবাদিকতা দিয়েই এই অন্যায়ের মোকাবিলা করব। আমরা বিশ্বাস করি, অচিরেই রোজিনা ইসলাম ফিরে আসবে এবং সাংবাদিকতা করেই তাঁর ওপর অন্যায়ের কড়া জবাব দেবেন।
বক্তারা আরও বলেন, সংবাদ মাধ্যমের স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ সংবিধান বিরোধী। অবিলম্বে রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা প্রত্যাহার করে তাঁকে নিঃশর্ত মুক্তি দিতে হবে। আমরা তাঁর মুক্তির দাবি জানাচ্ছি এবং তাঁকে যারা নির্যাতন করেছে তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়ারও অনুরোধ করছি।