ঢাকা, আজ শুক্রবার, ১৮ জুন ২০২১

চান্দিনায় ৩ বার উদ্ভোদন হয়েও চালু হয়নি ২০ শয্যার হাসপাতাল: চালুর দাবীতে মানববন্ধন

প্রকাশ: ২০২১-০৩-২২ ১২:০৭:২০ || আপডেট: ২০২১-০৩-২২ ১২:০৭:২০

চান্দিনা প্রতিনিধিঃ

কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার মহিচাইলে ২০ শয্যা হাসপাতাল চালুর দাবী উঠেছে। চান্দিনার বিভিন্ন শ্রেণির নাগরিকদের ওই দাবীর পর এবার স্থানীয় এলাকাবাসীকে নিয়ে “নিরাপদ চান্দিনা” টিম দাবী বাস্তবায়নে হাসপাতালের সামনে সোমবার (২২ মার্চ) মানববন্ধন করেছেন।

২০০৬ সালে ২০ শয্যা হাসপাতালটি উদ্বোধন হলেও হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা ছাড়া অন্য কোন চিকিৎসা এখনো চালু হয়নি। পরে আরো দুই বার উদ্বোধন হলেও এ হাসপাতালে চালু হয়নি চিকিৎসা সেবা।তবে মহিচাইল বাজার উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রের সেবা এই হাসপাতালে স্থানান্তরিত হয়।

“নিরাপদ চান্দিনা” টিম এলাকাবাসীকে নিয়ে সকাল সাড়ে ১১ টায় মহিচাইল ২০ শয্যা হাসপাতাল সড়কে হাসপাতাল পূর্ণাঙ্গ ভাবে চালু করতে মানববন্ধন করে।মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, ২০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের চিকিৎসা কার্যক্রম চালু না থাকায় মহিচাইলবাসী প্রাথমিক চিকিৎসাসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত রোগীরা সু চিকিৎসা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। সকল বক্তাদের প্রাণের দাবী বিষয়টি এমপি অধ্যাপক মো. আলী আশরাফ, উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা.মোঃ তানভীর হাসানের হস্তক্ষেপ করবেন।

মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন,দাউদকান্দি ও চান্দিনা সার্কেল অফিসার(এএসপি) মোঃ জুয়েল রানা,মহিচাইল ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আবু মুছা মজুমদার,চান্দিনা থানার এসআই সুলতান আহমেদ,বিশিষ্টজন শাহজাহান হোসেন,চান্দিনা উপজেলা গণতান্ত্রিক ছাত্র দল সভাপতি রাজিব আহমেদ ভূঁইয়া,স্থানীয় মেম্বার জাহিদ হাসান বিল্লাল,মেম্বার হারুনুর রশীদ,নিরাপদ চান্দিনা টিম ও ছাতাড্ডা মানব কল্যাণ ঐক্য পরিষদ এর সদস্যবৃন্দ।

তিনবার উদ্বোধন হলেও চালু হয়নি হাসপাতাল….

মহিচাইল ২০ শয্যা হাসপাতালটি ২০০৬ সাল থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত মোট ৩ বার উদ্বোধন হয়েছে।২০০৬ সালের ৫ সেপ্টেম্বর তৎকালীন স্ববাস্থ্য মন্ত্রী ড.খোন্দকার মোশারফ হোসেন এবং তৎকালীন এমপি ড.রেদোয়ান আহমেদ হাসপাতালটির প্রথম উদ্বোধন করেন। উদ্বোধনের পর ডেপুটেশনের মাধ্যমে ২জন মেডিকেল অফিসার, ৩ জন নার্সসহ আরও কয়েকজন কর্মচারী নিয়ে হাসপাতালের বহির্বিভাগের কার্যক্রম শুরু হলেও ২০০৮ সালের ২ মার্চ তাদের ডেপুটেশন বাতিল করা হয়।২০১০ সালের ৩০ এপ্রিলে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী ডা. আ.ফ.ম রুহুল হক, এবং স্থানীয় সংসদ সদস্য অধ্যাপক মো. আলী আশরাফ এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত সহ উপস্থিত থেকে হাসপাতালটি দ্বিতীয় বারের মত উদ্বোধন করেন। কিন্ত এবারও মহিচাইল বাসী এই হাসপাতাল থেকে চিকিৎসা সেবার আলোর মুখ দেখেনি।২০১৫ সালের ২৭ জুলাইতে হাসপাতালটি তৃতীয় বারের মতো উদ্বোধন করেন চান্দিনার বর্তমান এমপি অধ্যাপক মো. আলী আশরাফ। কিন্তু উদ্বোধন হলেও মহিচাইল তথা আশেপাশের চিকিৎসা বঞ্চিত মানুষের এবারও চিকিৎসা বঞ্চিত হয়েই থাকতে হলো।

এতো কিছু হওয়ার পরেও হতাশাকে আশায় পরিনত করে এবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃষ্টি আকর্ষন করে মহিচাইল ২০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালটি নিয়ে আর অবহেলা এবং কালক্ষেপণ না-করে অতি শীঘ্রই চিকিৎসা সুবিধা বঞ্চিত গ্রামবাসীদের জন্য পূর্ণভাবে হাসপাতালটি সচল করার দাবী সকলের।